পদ্মা সেতুর জন্য মাথা কাটার রহস্য



বর্তমান সময়ের একটি আলোচিত বিষয় হলো পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজে শিশুদের মাথা ব্যবহার করা হচ্ছে। কাগজে কলমে কথাটির কোনো প্রমাণ না থাকলেও বিভিন্ন জায়গায় মাথা কাটা নামে খবর শোনা যাছে। এ নিয়ে জনসমাজে ভীতি সৃষ্টি হয়েছে। আমজনতা বিষয়টি পুরোপুরি বিশাস করলেও শিক্ষিত ও সচেতেন নাগিরকের মনে সন্দেহের আবির্ভাব।

আসলেই কি পদ্মা সেতু নির্মাণে মানুষের মাথা দেওয়া হয় ?


পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে নিয়োজিত  পরিচালকের কার্যালয় থেকে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ বিষয়টি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে জানানো হয়েছে এবং এই ধরনের গুজব যেন অন্য কেউ ছড়াতে না পারে এ বিষয়ে সবাইকে সচেতন থাকতে বলা হয়েছে পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজে ওই অঞ্চলের কিছু মানুষ অপহরণ হয়েছে বলেও বিভিন্ন মাধ্যমে গুজব ছড়ানো হচ্ছে আর্ট এর মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে আতঙ্ক। 

তবে এই ধরনের কোন ঘটনা ঘটেছে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে জানা যায় নি। 
বিশেষজ্ঞদের মতে বাংলাদেশের পেক্ষাপটে কোন বড় নির্মাণ কাজ এবং পদ্মা সেতুর মতো নির্মাণ কাজে এই ধরনের গুজব নতুন কিছু নয়।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের অধ্যাপক সুচেতা চক্রবর্তী বলেন,
বাংলাদেশের শাসন ব্যবস্থার ঐতিহাসিক পটভূমি এবং গ্রামীণ মানুষের চিন্তাধারা বিবেচনা করলে এর কারণ জানা যাবে। 


বাংলাদেশের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট বিবেচনা করলে দেখা যাবে বিভিন্ন রাজা সম্রাটের অভিনয় ছিল এই দেশ।  এবং তাদের নিয়ম নীতি ও আদর্শ ছিল ব্যতিক্রম ধর্মী।
কথিত আছে, 1580 সালে যখন মৌলভীবাজারে কমলার দীঘি তৈরি করার সময়
পানি উঠছিল না তখন রাজা রাতে স্বপ্নে দেখেন , টের স্ত্রী আত্মবিসর্জন দিলে দীঘিতে পানি উঠবে এবং পরবর্তীতে তার স্ত্রী কে দিঘিতে আত্মবিসর্জন দেওয়া হলেই পানি উঠে।
এই ঘটনার কোনো প্রমান বা লিখিত দলিল না থাকলেও প্রাচীন কাল থেকে মানুষের মনে এসব কথা চলে আসা বা চিন্তা ধারার কারণেই এসব ঘটনার সৃষ্টি হয়।